0
37

মুজাম্মিল লতিফি গুয়াহাটি, ৮ ফেব্রুয়ারী : হাতে হাতে  প্লেকার্ড। ততে লেখা রয়েছে মাদ্রাসা নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করতে হব, আমসা কর্মী হত্যাকারীর বিচার চাই,মাদ্রাসা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করতে হবে।অসম সরকার মুর্দাবাদ, আমসা জিন্দাবাদ। সর্বানন্দ সনোয়াল হায় হায়, হিমন্তবিশ্ব শর্মা হায় হায় এসব স্লোগানে মুখরিত হয় দিসপুর লাষ্ট গেট। সারা আসাম মাদ্রাসা ছাত্র সংস্থা (আমসার) কেন্দ্রীয় কমিটির ডাকে বুধবার দিসপুর লাষ্ট গেটে আট দফা দাবি নিয়ে অবস্থান ধর্মঘট পালন করে। সকাল দশটা হইতে তিনটে পর্যন্ত চলে আমসার ধর্মঘট। ছাত্র সংস্থা আমসার কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জান চৌধুরী  সাংবাদ মাধ্যমকে জানান, বর্তমান ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার সংখ্যালঘুদের প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত রেখেছে বলে অভিযোগ তোলেন। তিনি জানান, সরকার পরিচালিত সিনিওর ও টাইটাল মাদ্রাসায় পনেরো – বিশজন শিক্ষকের স্থলে দু তিনজন শিক্ষক দিয়ে চলছে মাদ্রাসায় পাঠদান, এতেই প্রমাণ হচ্ছে সরকারের সংখ্যালঘু বৈষম্য। মাদ্রাসার বিভিন্ন দাবি সম্বলিত স্বারকপত্র এর আগেও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, রাজ্যপাল ও বিভাগীয় মন্ত্রীর হাতে দেওয়া হয়েছে। তবুও ফল শূন্যের কোটায়। এই কারণে আজ আবারও ধর্মঘট পালন করেছে।
 এদিকে, আমসার ধর্মঘট কার্যসূচীতে অংশ নেন, রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা দেবব্রত শইকিয়া, উত্তর করিমগঞ্জের বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ, মরিয়ানির বিধায়ক রুপজ্যোতি কুর্মী, বিধায়ক নন্দিতা দাস। সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় দেবব্রত শইকিয়া বলেন, বিজেপির নোংরা রাজনীতির দিন শেষ হতে চলেছে। আগামীতে আসছে কংগ্রেস সরকার। কংগ্রেস ক্ষমতায় এলেই মাদ্রাসা বোর্ড পুনর্বহাল, মাদ্রাসায় খালি থাকা শিক্ষক পদে নিযুক্তি, মাদ্রাসা শুক্রবারের সাপ্তাহিক বন্ধকে পুনর্বহাল  করা হবে।এককথায়, সমাধান করা হবে সংখ্যলঘুদের যাবতীয় সমস্যার। বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ বলেন, এনআরসি নিয়ে রাজ্যের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার ধর্মীয় ও ভাষিক সংখ্যলঘুদের প্রতি বৈষম্য করে চলেছে। তাঁরমতে, কংগ্রেস দল বা কংগ্রেসি জনপ্রতিনিধি ছাড়া সংখ্যলঘুদের সমস্যা সমাধানে  অন্য কেহ এগিয়ে আসবে না। তাই আপনাদের পাশে আমরা সর্বদা আছি ও থাকবো, আপনারাও আমাদের পাশে থাকুন, বলেন বিধায়ক কমলাক্ষ। স্বারকপত্রে উল্লেখিত দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, আসামে মাদ্রাসা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা, সব মাদ্রাসা প্রাদেশীকরণ করা, মাদ্রাসার খালি পদ সমূহ পূরণ করা, মাদ্রাসা বোর্ডের সঞ্চালকের পদে নিযুক্তি দেওয়া, কামরূপ জেলা আমসার সাধারণ সম্পাদক বাহার আলী হত্যা কাণ্ডর সিবিআই তদন্ত, মাদ্রাসার বার্ষিক আলোচনা পত্রিকা প্রকাশের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আর্থিক সাহার্য্য, মাদ্রাসা ছাত্র ছাত্রীদেরকে আনন্দরাম বরুয়া পুরষ্কার প্রদান সহ মাদ্রাসা সাপ্তাহিক ছুটির দিন আগের মতো শুক্রবার পুনর্বহাল করতে হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি হাফিজ সহিদ আহমেদ মজুমদার,করিমগঞ্জ জেলা আমসার সভাপতি মওলানা বদরুল হক, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন, কাছাড় জেলা আমসার সভাপতি হাফিজ এনামূল হক লস্কর, কামরূপ জেলা আমসার সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখদের নেতৃত্বে চলে দীর্ঘ পাঁচ ঘন্টা অবস্থান ধর্মঘট। পরে রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যেশ্যে এক স্বারকপত্র প্রেরণ করা হয়। এতে দাবি আদায় না হলে যন্তর মন্তরে অনশনে বসার হুমকি দেওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here