• Breaking News

    Breaking News
    Loading...

    রামকৃষ্ণনগর কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ


    মুকতার আহমেদ, রাতাবড়ি: গতকাল রামকৃষ্ণনগর মহাবিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে এনএসইউআই এবং এভিবিপির সমর্থীত প্রার্থীরা প্রতিদ্বদ্বন্দিতা করেন।

    নির্বাচনী নিয়ম অনুসারে কোন দলের কর্মকর্তা রিটার্নিং অফিসার হতে পারবেন না। কিন্ত অধ্যক্ষ আইনকে বুড়া আঙ্গুল দেখিয়ে এভিবিপির একজন ব্লক সভাপতিকে রিটার্নিং অফিসারের দায়ীত্ব দিয়ে দেন। এন এস ইউ আই এর সমর্থীত প্রার্থীরা যখন দেখেন এভিবিপির এক কর্মীকে রিটার্নিং অফিসার দেওয়া হয়েছে তখন তারা সঙ্গে সঙ্গে অধ্যক্ষের কাছে অভিযোগ করেন। 

    অধ্যক্ষ অভিযোগের দিকে কান না দিয়ে ভোটপর্ব সমাপ্ত করেন এবং পরে ভোট গণনা চালু করে দেন। গণনা পর্বে ও প্রশাসনিক দায়িত্বে রয়েছেন এবিভিপির ব্লক সভাপতি।  যখন একরাউন্ড গণণা সমাপ্ত হয় তখন এন এস ইউ আই এর সমর্থিত প্রর্থিরা এভিবিপির প্রার্থীদের থেকে প্রচুর ভোট এগিয়ে ছিল। কিন্ত হঠাৎ গনণা চলাকালীন সময়ে পরিকল্পিত ভাবে মধ্যাহ্ন ভোযনের নামে প্রার্থীদেরকে অন্য কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়। আর ভোটের বাক্সগুলো সেই এবিভিপি নেতার তত্বাবধানে রেখে দেওয়া হয়। 

    যখন দ্বিতীয় রাউন্ড গণণা চালু হয় তখন দেখতে পাওয়া যায় যে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের ব্যালটে ভোট দেওয়া আর বাকি সবকটি খালি। এরমধ্যে দশটি ভোট এভিপির সভাপতি পেলে একটি ভোট এন এস ইউ আই এর সমর্থীত সভাপতি পাচ্ছে। তখন এনএসইউআইর সদস্যদের মনে সন্দেহ জাগে।

    তাদের প্রশ্ন হলো যারা ভোট দিয়েছে ওরা কি অশিক্ষিত, বোকা যে দুইটাতে ভোট দিয়ে বাকি সবটি খালি রাখবে?
    তখন এনএসইউআইর প্রার্থীরা এবং আরো দুইশো-র মতো ছাত্রছাত্রী নিয়ে কাউন্টিং রুম থেকে চলে আসেন। 

    তারা সার্কল অফিসারের দ্বারস্ত হয়ে অধ্যক্ষের বিরুদ্বে অভিযোগ করে পুনঃ নির্বাচনের দাবী জানান। এবং সার্কেল অফিসারের মাধ্যমে ডিসিকে ও নালিশ পাঠান। 

    No comments